গোপন সূরার গোপন খবর:পর্ব-৫ম


৭৪:৩০ "ইহার উপর ১৯।"


অতি প্রাচীনকাল থেকে গাণিতিক সংখ্যাকে আরবি, গ্রীক, হিব্রু, ভাষার অক্ষরে লেখার প্রচলন ছিল। প্রতিটি অক্ষরের সংখ্যাগত মান ছিল এবং গণনার জন্যে অক্ষরগুলি ব্যবহার হতো। একে আবজদ বলে। 


Source: https://en.wikipedia.org/wiki/Arabic_alphabet


ক্বাফ অক্ষরটি সংখ্যাগত মানের দিক থেকে আরবী বর্ণমালার ১৯তম অক্ষর। যেহেতু ১৯ নাম্বার অক্ষর, তাই এটার মধ্যেও নিশ্চয়ই মিরাকল থাকবে।

ক্বাফ  নামে একটা সূরা আছে যার নাম্বার ৫০।




১)

কোরআনের ক্বাফ সূরায়  ক্বাফ  (ق) অক্ষরটি এসেছে মোট ৫৭ বার।

৫৭  কে ১৯ দ্বারা ভাগ করা যায়। (১৯*৩)=৫৭।  

N.B. যে সফটওয়ারে সাহায্য নিয়ে ছিলাম তার Screenshot নিচে দেওয়া হলো।

রহস্যটা যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো!



২)

ক্বাফ সূরায় মোট আয়াত ৪৫টি। যদি মোট আয়াত (৪৫)  এবং  সূরা নাম্বার (৫০) যোগ করা হয়, তাহলে ৪৫+৫০=৯৫। (১৯*৫)

রহস্যটা যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো!


৩)

ক্বাফ সূরার ১ম আয়াত  ক্কাফ ওয়াল কুরআনিল মাজিদ । 'ক্কাফ' কে 'মাজিদ' বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

 'মাজিদ শব্দটির (م=৪০, ج=৩, ي=১০, د=৪) সংখ্যাগত মান ৫৭। লক্ষনীয়, ১৯*৩।

রহস্যটা যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো!



৪)

সূরা শূরা কোরআনের ৪২ নাম্বার সূরা। সূরার শুরু আরবি হা, মীম। আইন, সীন, ক্বা-ফ এই অক্ষরগুলো দিয়ে। এই সূরায় ক্বা-ফ অক্ষর মোট এসেছে ৫৭ বার। লক্ষনীয়, ১৯*৩

N.B. যে সফটওয়ারে সাহায্য নিয়ে ছিলাম তার Screenshot নিচে দেওয়া হলো।

রহস্যটা যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো!




৫)

 সূরা শূরা মোট আয়াত ৫৩টি। যদি মোট আয়াত (৫৩)  এবং  সূরা নাম্বার (৪২) যোগ করা হয়, তাহলে ৫৩+৪২=৯৫। (১৯*৫)

রহস্যটা যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো!


 





Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Easily create Qt Help files