16:36,35:2,10:47(বাঙলা ভাষী রসূল)

Parent Previous Next

আমি প্রত্যেক উম্মতের মধ্যেই রাসূল প্রেরণ করেছি এই মর্মে যে, তোমরা আল্লাহর এবাদত কর এবং তাগুত থেকে নিরাপদ থাক। অতঃপর তাদের মধ্যে কিছু সংখ্যককে আল্লাহ হেদায়েত করেছেন এবং কিছু সংখ্যকের জন্যে বিপথগামিতা অবধারিত হয়ে গেল। সুতরাং তোমরা পৃথিবীতে ভ্রমণ কর এবং দেখ মিথ্যারোপকারীদের কিরূপ পরিণতি হয়েছে।সূরা নাহল - ১৬: ৩৬

এমন কোন সম্প্রদায় নেই যাতে সতর্ককারী আসেনি।সূরা -ফাতির -৩৫:২

আর প্রত্যেক সম্প্রদায়ের একেকজন রসূল রয়েছে। যখন তাদের কাছে তাদের রসূল ন্যায়দন্ডসহ উপস্থিত হল, তখন আর তাদের উপর জুলুম হয় না।সূরা ইউনুস- ১০: ৪৭


আল্লাহ কোরানে বলেছে সে নাকি সকল জাতির কাছে নবি পাঠিয়েছিল। এভাবে মোট এক লক্ষ চব্বিশ হাজার নবি দুনিয়াতে আসছিল। তাই যদি হয় , বাঙ্গালীদের কাছে আসা নবীর নাম কি ? সে কবে ও কোথায় আসছিল ?


জবাব :

আমাদের বাংলাদেশের বয়স মোটে ৪৩ বছর ,  রসুল আসার  সময় তো এখনো ফুরিয়ে যায় নি। আর বাঙলা ভাষী রসুলের কথা যদি বলেন ,  তবে তিনি যে আসেন নি তা নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়।  কেন সম্ভব নয়? কারন--


১) হয়তো এসেছিলেন , কিন্তু তাকে আমরা মিথ্যাবাদী বলে মানি নি বা হত্যা করেছি।

২:৮৭ অবশ্যই আমি মূসাকে কিতাব দিয়েছি। এবং তার পরে পর্যায়ক্রমে রসূল পাঠিয়েছি। আমি মরিয়ম তনয় ঈসাকে সুস্পষ্ট মোজেযা দান করেছি এবং পবিত্র রূহের মাধ্যমে তাকে শক্তিদান করেছি। অতঃপর যখনই কোন রসূল এমন নির্দেশ নিয়ে তোমাদের কাছে এসেছে, যা তোমাদের মনে ভাল লাগেনি, তখনই তোমরা অহংকার করেছ। শেষ পর্যন্ত তোমরা একদলকে মিথ্যাবাদী বলেছ এবং একদলকে হত্যা করেছ।        


২) আরবরা যেমন কোরানকে সংরক্ষন করে আমাদের পর্যন্ত পৌছাতে পেরেছে , আমরা বাঙালিরা তেমন কৃতিত্বের সাথে বাঙালি রসূলের বাণীকে আমাদের পর্যন্ত পৌছাতে পারে নি । দোষ আমাদের।


৩) বাঙালিরা কখনো ধর্মহীন ছিল , এমন কোন ইতিহাস আমাদের  জানা নেই। এর অর্থ দাড়ায় বাঙালি রসূল একটি নয় বোধহয় একাধিক এসেছিল ।


৪) আরবি কোরানে  শুধুমাত্র আরব নবী রসূলদের কথা থাকাই স্বাভাবিক। কারন প্রাচীন আরবে যখন আজকের মতো মিডিয়া ছিল না , তখন তাদের কাছে বাঙালি বা জাপানী রসূলের বর্ণনা কতটুকু তাদের বোধে আসত তা ভাববার বিষয়। কোরানেই বলা আছে এমন অনেক নবী রসূল আছে যাদের কাহিনী কোরানে বলা হয় নাই।


Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Write eBooks for the Kindle