16:66(দুধ তৈরি)

Parent Previous Next

আল কোরআন ১৬:৬৬

নিশ্চয় তোমাদের জন্য শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে গৃহপালিত পশুর মধ্যে।

আমি তোমাদের পান করাই তাদের পেটের গোবর ও রক্তের মাঝখান থেকে খাঁটি দুধ যা পানকারীদের জন্য সুপেয়।


এই হলো দুধ তৈরির আল-কুরানীয় বিজ্ঞান!


জবাব :

পবিত্র কোরাআন মুসলিম বিজ্ঞানী ইবনে নাফীসের ৬০০ বছর আগে এবং পশ্চিমা বিশ্বে উইলিয়াম হারওয়ে কর্তৃত রক্ত চলাচলের ধারণা দেয়ার ১ হাজার পূর্বে,নাযিল হয়েছে।১৩০০ বছর আগে,অন্ত্রনালীতে কি ঘটে,তা জানা যায়।জানা যায় যে,শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গ হজম বা বিপাকীয় প্রক্রিয়ার লালিত হয়।পবিত্র কোরআন মজীদের এক আয়াতে দুধের উপাদানের উৎসের ব্যাপারে যা বলা হয়েছে,তা এর সাথে পূর্ণ সামঞ্জস্যপূর্ণ।


এ ব্যাপারে কোরআনের আয়াত বুঝতে হলে,আগে জানতে হবে যে,অন্ত্রনালীতে কি কি রাসায়নিক প্রক্রিয়া ঘটে এবং সেখান থেকে অর্থাৎ খাদ্যের নির্যাস কি করে একটি জটিল প্রক্রিয়ায় রক্তে প্রবাহিত হয়।রাসায়নিক প্রকৃতির উপর ভিত্তি করে তা যকৃতের মাধ্যমে সরবরাহ হয়।রক্ত সে গুলোক শরীরের প্রত্যেক অঙ্গ প্রত্যঙ্গ সরবরাহ করে।এর মধ্যে দুধ উৎপাদনকারী স্তন সম্বন্ধীয় গ্রন্থি অন্যমত।

সহজ ভাষায় বলতে গেলে বলা যায় যে,অন্ত্রনালীর কিছু সুনির্দ্দিষ্ট নির্যাস,অন্ত্রনালীর দেয়ালের পাত্রে প্রবেশ করে এবং রক্ত প্রবাহের ফলে সে সকল নির্যাস বিভিন্ন অঙ্গে সরবরাহ হয়।

আমরা নিম্নের আয়াতটিতে শারীরতত্ব বিষয়ক বর্ণনার প্রশংসা করতে পারি।


মহান আল্লহ বলেনঃ

“এবং তোমাদের জন্য চতুষ্পদ জন্তুসমূহের চিন্তা করার বিষয় রয়েছে।আমি তোমাদেরকে পান করাই তাদের উদরস্থিত বস্তুসমূহের মধ্য থেকে গোবর ও রক্ত নিঃসৃত দুধ যা পানকারীদের জন্য উপকারী।”সূরা আন নাহল-৬৬


আল্লাহ আরো বলেনঃ

“এবং তোমাদের জন্য চতুষ্পদ জন্তসমূহের মধ্যে চিন্তা করার বিষয় রয়েছে।আমি তোমাদেরকে তাদের উদরস্থিত বস্তু থেকে পান করাই এবং তোমাদের জন্য তাদের মধ্যে রয়েছে প্রচুর উপকারিতা।তোমরা তাদের কিছুকে ভক্ষণ কর।”সরা আল মুমিনুন-২১


১৪০০ বছর আগে গবাদি পশুর দুধ তৈরির ব্যাপারে কোরআনের বর্ণনা সাম্প্রতিককালে শারীরতত্ব বিদ্যার আবিষ্কারের মতই অভিন্ন।

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free HTML Help documentation generator