গোপন সূরার গোপন খবর

Parent Previous Next

গোপন সূরার গোপন খবর:


কোরআন যে ১৯ সংখ্যার গানিতীক কোড দিয়ে সাজানো এটা প্রথম আবিষ্কৃত হয় ১৯৭৪ সালে। এরপরই বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক গবেষণা শুরু হয়।


আরবী “মুদ্দাসসির” শব্দটির অর্থ “লুকায়িত” বা গোপন। সূরা মুদ্দাসসির কোরআনের ৭৪ তম সূরা, আর এই সূরাতেই ১৯ সংখ্যাটির প্রয়োগ উল্লেখ করে একটি আয়াত (৩০ নং) আছে। যা এই অধ্যায়ের শুরুতে উল্লেখ করেছি। কথা হচ্ছে, যখন আমরা আবিষ্কৃত ১৯ আর সূরা মুদ্দাসসির এর কোরআনে অবস্থান ৭৪ কে পাশাপাশি বসাই, তখন যে সংখ্যাটি পাওয়া যায় তা হলো ১৯৭৪, যা যে সালে বিষয়টি আবিষ্কার হয়েছে তার সমান।

হযরত ইসা (আ এর জন্মের পর ১৯৭৪ বছর ধরে একটা গোপন রহস্য মানবজাতীর জ্ঞানচক্ষুর আড়ালে রেখে দিয়েছিলেন মহাশক্তিশালী বিচার দিনের মালিক !! কি মহামহিম তিনি!!!

রহস্য যদি এখানেই শেষ হয়ে যেতো! ইস! ——- কি পহাপরাক্রমশালী তিনি !!


১৯৭৪ সালটি যখন দুনিয়াতে চলছিল, তখন দুনিয়াতে হিজরী সাল চলছিল ১৩৯৩ সাল। কোরআন প্রথম নাজিল হওয়া শুরু হয় হিজরতের ১৩ বছর আগে। এই তের বছর ১৩৯৩ এর সাথে যোগ করলে মোট দাড়ায় ১৪০৯ বছর। অর্থাৎ কোরআন নাজিলের শরু থেকে শুরু করে মোট ১৪০৯ বছর পর কোরাআনের একটা “মুদ্দাসসির” বা “গোপন” রহস্য উন্মোচিত হয়। ১৪০৯ ?? এটার আবার গুরুত্ব কি ? হুমম—- ১৯ কে ৭৪ দিয়ে গুন করলে ১৪০৯ হয়ে যায় যে! ১৯*৭৪=১৪০৯।

রহস্যটা যদি এখানেই খতম হয়ে যেতো!


এই সূরার প্রথম দুই আয়াত এরকম ১. হে চাদরাবৃত ২. উঠুন সতর্ক করুন।

এই দুই আয়াতে মোট অক্ষর এর সংখ্যা ১৯ টি। আর আয়াতদুটির মোট সংখ্যাগত মান কত জানেন ? আপনি হয়তো ভাববেন আমি ভুল তথ্য দিচ্ছি, আসলে বলতে গিয়ে আমি আবেগাপ্লুত হযে যাচ্ছি ।এই আয়াতদুটির সংখ্যাগত মান হিসাব করলে তা দ্বারায় ১৯৭৪!!!!!! সতর্ক কেন করতে বলেছেন তিনি, বুঝেছেন ?

আয়াত দুটি হল, ইয়া আইয়্যুহাল মুদ্দাসসির, কুম ফাআনযির।

ইয়া=১০, আলিফ=১, আলিফ=১, ইয়া=১০, আলিফ=১, আলিফ=১, লাম=৩০, মিম=৪০, দাল=৪, ছা=৫০০, র=২০০, ক্বাফ=১০০, মিম=৪০, ফা=৮০, আলিফ=১, নুন=৫০, যাল=৭০০, র=২০০

মোট মান = ১০+১+১+১০+———-+১+৫০+৭০০+২০০=১৯৭৪।

এখা্নেই যদি শেষ হয়ে যেতো রহস্যের! সুবহানাআল্লাহ—তিনি কত মহান–!


সূরাটি ৭৪ নং সূরা, মুদ্দাসসির শব্দটা আছে ১ নং আয়াতে। সুতরাং ১ নং আয়াতকে কোথাও রেফার করা হয় (৭৪,১) লিখে। কমা ছারা সংখ্যাটি ৭৪১, কথা তা না, কথা হচ্ছে, এই ১ নং আয়াতটি থেকে শুরু করে , কোরআনের সর্বশেষ আয়াত পর্যন্ত গননা করলে মোট ৭৪১ টা আয়াত পাওয়া যায়। ৭৪১ আক্ষরটাও ১৯ দ্বারা বিভাজ্য (১৯*৩৯=৭৪১)।

কোরআনে কিভাবে একেকটা আয়াত, একেকটা শব্দ, একেকটা অক্ষর এতো অবাক Mathematics কে মেনে চলতে পারে ? এগুলোকে কি বলবেন আপনি ? Coincidence ? আন্দাজে মিলে গেছে ?

দুনিয়ার কোন ঘটনাই কারণ ছারা ঘটে না। যা হোক মেনে নিচ্ছি আপনার কথা। আসুন আরো কিছু আন্দাজে (!) মিলে যাওয়া ঘটনা দেখি !


সূরাটিতে অগ্নি অর্থে “সাকার” শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে ২৬, ২৭ ও ৪২ নং আয়াতে। যেগুলোতে বলা হচ্ছে, যারা সুস্পষ্ট নিদর্শন দেখার পরও, কোরআনকে মানুষের উক্তি বলবে, তাদরেকে সাকার বা অগ্নিতে নিক্ষেপ করা হবে। এখন ২৬+২৭+৪২=৯৫, লক্ষনীয় ১৯*৫=৯৫।এই ২৬, ২৭ ও ৪২ নং আয়াত তিনটির সংখ্যাগত মান (৫৫৬,৬৮৩,৬৬১) একত্রে যোগ করলে পাওয়া যায় ১৯০০, লক্ষনীয় ১৯*১০০=১৯০০।আরো অবাক ব্যাপারটা হলো, যদি আমরা এই তিনটি আয়াতের সংখ্যাগত মানের সাথে, কোরআনের সূরাটির অবস্থান (৭৪) কে যোগ করি তাহলে আমরা সেই সালকে পাব যে সালে ১৯ এর রহস্য আবিষ্কার করা হয়। যে সূরাতে এতোকিছুকে গোপন করে রাখা হয়েছে, তার নাম মুদ্দাসসির কেন দেয়া হলো, এবার বুঝতে পেরেছি!

শেষ! না, এখনো হয় নি,——–


আপনি যদি সূরা মুদ্দাসসির পরেন, তাহলে দেখবেন, এই সূরাটির ১ টি আয়াত বাদে বাকি সব আয়াতগুলো খুব ছোট ছোট। আর এই অস্বাভাবিক আয়াতটা হচ্ছে সূরাটির ৩১ নং আয়াত। একমাত্র এই আয়াতেই ১৯ এর কার্যকারিতা সম্বন্ধে বলা হয়েছে। সূরাটর ১ টি আয়াতে গড়ে যতগুলো অক্ষর এসেছে, তার ১২ গুন অক্ষর এসেছে এই ৩১ নং আয়াতে।উল্লেখ্য কোরআনের সবচেয়ে বড় আয়াত, সূরা বাকারার ২৮২ নং আয়াত। সূরা বাকারতে একটি আয়াতে গড়ে যতগুলো অক্ষর এসেছে, তার সমান ৬ গুন অক্ষর এসেছে ২৮২ নং আয়াতটিতে। অর্থাৎ গড় অনুপাতের দিকে বিবেচনা করলে মুদ্দাসসির এর ৩১ নং আয়াতটি বাকারার ২৮২ নং আয়াতেরও ২ গুন। এই আয়াতটিতেই যেহেতু এসেছে ১৯ সংখ্যাটির কথা, তাই নিশ্চয়ই আয়াতটির মধ্যে ১৯ এর রহস্য লুকানো আছে ! আছে কি ?


আয়াতটিতে মোট ৫৭ টি শব্দ আছে। ১৯*৩=৫৭। আবার আয়াতটির যে বাক্যটিতে ১৯ অক্ষর আছে তাতে ৩ টি শব্দ আছে। ৩ এর একটা অর্থ আছে এখানে। তা হলো এই আয়াতে শব্দ সংখ্যা ৫৭, যেটা ১৯ কে ৩ দিয়ে গুন করে পাওয়া যায়।

আয়াতটির একটা বাক্য হলো, “——— আল্লাহ এর দ্বারা কি বুঝাতে চেয়েছেন?” এই বাক্যটিতে মোট ১৯ টা শব্দ আছে। আর আয়াতটির প্রথম থেকে এই আয়াত পর্যন্ত শব্দ সংখ্যা ৩৮ টি। লক্ষনীয়, ১৯*২=৩৮। আরো লক্ষনীয় এই বাক্যটির পরের বাক্যগুলোতে মোট ১৯ টা শব্দ আছে।প্রথম থেকে শুরু করে এই অস্বাভাবিক বড় আয়াতটি পর্যন্ত মোট আয়াত ৩০ টি। এই ৩০ টি আয়াতে মোট শব্দ সংখ্যা ৯৫ টি । লক্ষনীয, ১৯*৫=৯৫।


প্রথম থেকে শুরু করে এই আয়াতে উল্লেখিত “উনিশ” শব্দটি পর্যন্ত মোট ৩৬১ টি অক্ষর আছে। ৩৬১ কে ১৯ দিয়ে ভাগ করলে ১৯ পাওয়া যায়। (১৯*১৯=৩৬১)। সুবহানাল্লাহ——! এটা কি মোটেও মেনে নেয়ার মত !সূরাটির প্রথম থেকে উনিশতম আয়াত পর্যন্ত শব্দ সংখ্যা ৫৭ টি। ১৯*৩=৫৭।সূরাটিতে ক্রমিক নম্বর সহ আয়াত আছে মোট ৫৬টা। আর ক্রমিক নম্বর ছারা বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম আয়াতটি আছে সূরার শুরুতে। তাহলে মোট আয়াত ৫৬+১=৫৭। লক্ষনীয় ১৯*৩=৫৭। রাব্বুল আলামীন নিশ্চয়ই বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম কে “মুদ্দসসির” (গোপন) রেখেছেন সূরাটির নামটিকে শিল্পোত্তির্ণ করতে!

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free HTML Help documentation generator