কোরান যে আসলেই আল্লাহর বানী নয় তার সুস্পষ্ট স্বীকৃতি আছে খোদ কোরানেই। কথায় বলে কোন অপরাধী যে যত চালাক আর বুদ্ধিমানই হোক না কেন , তার অপরাধ কাজের কিছু না কিছু আলামত সে রেখে যাবেই। তাই যারা কোরান লিখেছে তারাও কোরানে কিছু আলামত রেখেছে।


কোরানেই আছে তার আলামত , যেমন---

নিশ্চয়ই এই কোরআন একজন সম্মানিত রসূলের বানী। সূরা হাক্কা-৬৯:৪০

নিশ্চয় কোরআন সম্মানিত রসূলের বাণী। সূরা তাকবির -৮১:১৯


অতীব সরল স্বীকারোক্তি। কোন প্যাচ নাই। কোরানের বানী হলো আসলে একজন রসূলের বানী তথা মোহাম্মদের বানী।


জবাব:


"কোরান যে আসলেই আল্লাহর বানী নয়" এর মানে কি আপনি স্বীকার করছেন , আল্লাহ বলে একজন আছেন? যদি স্বীকার না করেন , তাহলে কোরান রসূলের বাণী নাকি আল্লাহর বাণী তাতে অবিশ্বাসীর কি আসে যায়!!!


কোরান আল্লাহভীরু বিশ্বাসীদের জন্য , এটা কোরানেরি বাণী। আপনি আল্লাহয় অবিশ্বাসী হলে , কোরান আপনার কাছে আল্লাহর বাণী না হয়ে রসূলের বাণী বলেই মনে হবে। কোরানের পরিস্কার আয়াত আপনার চোখ এড়িয়ে যাবে এতে আর আশ্চর্য হওয়ার কি আছে?  না হলে পরবর্তী আয়াত আপনার চোখ এড়িয়ে যাওয়ার কথা নয়। আল্লাহ মানুষের সাথে সরাসরি কথা বলেন না।  পর্দার আড়াল থেকে বা রসূলের মাধ্যমে  বা ওহীর মাধ্যমেই কেবল আল্লাহ মানুষের সাথে কথা বলেন , এটাও কোরানের বাণী। কোরান অবশ্যই রসূলের মুখ নিঃসৃত বাণী , এতে কোন ভুল নেই।


হাইলাইট করা অংশটুকু মনোযোগ দিয়ে পড়ুন ,  আপনার বুঝে আসলেও আসতে পারে



69:40

নিশ্চয়ই এই কোরআন একজন সম্মানিত রসূলের আনীত।


69:41

এবং এটা কোন কবির কালাম নয়; তোমরা কমই বিশ্বাস কর।


69:42

এবং এটা কোন অতীন্দ্রিয়বাদীর কথা নয়; তোমরা কমই অনুধাবন কর। <br />


69:43

এটা বিশ্বপালনকর্তার কাছ থেকে অবতীর্ণ।


69:44

সে যদি আমার নামে কোন কথা রচনা করত, 


69:45

তবে আমি তার দক্ষিণ হস্ত ধরে ফেলতাম,


Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Create help files for the Qt Help Framework