কোরআন শয়তানের না আল্লাহর  বানী !


জবাব :


১) যদি শয়তানের বানী হয় তবে শয়তানের অস্তিত্ব স্বীকার করে নেয়া হয়েছে।

২) শয়তান ছিল ফেরেশতাদের সরদার। অতএব ফেরেশতাদের অস্তিত্ব স্বীকার করতে হবে!

এবং যদি ফেরেশতা এবং শয়তান থাকে তবে  আল্লাহ তায়ালার অস্তিত্ব কি ভাবে অস্বীকার করবেন???? অবশ্যই অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

৩) যদি আল্লাহর অস্তিত্ব স্বীকার করেন তবে তিনি যে শয়তানের চেয়েও ক্ষমতাশীল তা স্বীকার করতে আপনি বাধ্য ৷

৪) যেহেতু আল্লাহ বেশি শক্তিশালী সেহেতু আল্লাহর বিধান পরিবর্তন করার শক্তি শয়তানের নেই ৷ এবং যেহেতু শয়তানকে বিতাড়িত করা হয়েছে, সেহেতু শয়তানকে দিয়ে আল্লাহ কোরআন এর আয়াত পৌঁছাবেন না ৷ অতএব প্রমান হতে বাধ্য যে এই বাণী শয়তানের না, বরং আল্লাহ তায়ালার ৷


৫) নিজের সুবিধামত অদৃশ্য শয়তানকে স্বীকার করবেন কিন্তু অদৃশ্য আল্লাহ তায়ালাকে  অস্বীকার করবেন?

এটা কেমন যৌক্তিকতা?

ব্যাখ্যা করবেন কি?

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free PDF documentation generator