পৃথিবী ঘূর্ণনশীল

Parent Previous Next

সমস্ত কুরান ঘেটে একটা আয়াতও পেলাম না যেখানে আল্লা বলেছেন পৃথিবী ঘূর্ণনশীল।


জবাব :

আসুন দেখি কোরআন কী বলে-


৭৭:২৫

আমি কি পৃথিবীকে সৃষ্টি করিনি কিফাতান” / كِفَاتًا / kifātan?

এখানে আরবী “কিফাতা” শব্দটির অনুবাদে পৃথিবীর গতির কথা লুকিয়ে আছে।


كِفَاتًا/ kifāta/ কিফাতা:

“কিফাতা” শব্দটি যদি কোন পাখির জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে তাহলে এর অর্থ দাঁড়াবে “পাখির পালক সংকুচিত করে জোড়ে উড়া” (lughat-ul-quran)

যদি এ শব্দটি ঘোড়ার জন্য ব্যবহৃত হয় তাহলে হবে “ঘোড়াটি অনিয়ন্ত্রিভাবে দৌড়াচ্ছে” এবং অশ্বারোহী তাকে নিয়ন্ত্রন করতে সক্ষম নয় (lughat-ul-quran)

অতএব এ “কিফাতা” শব্দটি পৃথিবীর জন্য ব্যবহৃত হলে এটি বুঝবেন  দ্রুতগামী(fastly moving) বস্তু যার গতি আরোহীদের(পৃথিবীতে বসবাসকারী জীব) দ্বারা নিয়ন্ত্রিত নয়।

Lughaat-Al-Quran: http://www.studyquran.org/resources/Lughaat-Al-Quran_G-A-Parwez.pdf




৫৫:১০

পৃথিবী “ওয়াদা’ আহা”/ وَضَعَهَا /waḍaʿahā সৃষ্টজীবের জন্যে।


وَضَعَهَا /waḍaʿahā/“ওয়াদা’ আহা”:

যদি “ওয়াদা’ আহা” মানুষের সাথে ব্যবহৃত হয় তবে তার অর্থ হবে মানুষটি দৌড়াচ্ছে। যেমন: “ওয়াদা আতুররজুল” মানে হচ্ছে দৌঁড়ানো মানুষ

যদি উটের সাথে হয় তার অর্থ হয় উটটি দৌড়াচ্ছে। যেমন: “ওয়াদা আতিন নাকাহ” মানে হচ্ছে দৌঁড়ানো ঘোড়া

আর যদি “ওয়াদা’ আহা” পৃথিবীর সাথে ব্যবহৃত হয় তবে তার অর্থ হবে পৃথিবীটি ঘুরতেছে।



০২:২২

যে পবিত্রসত্তা তোমাদের জন্য পৃথিবীকে “ ফিরাশান”/فِرَاشًا /firāshan


فِرَاشًا/firāsha/ ফিরাশ:

ফিরাশ বলতে উড়ন্ত কীটপতঙ্গ কে বুঝায় যেমন: মশা, মাছি। এছাড়াও আয়াত ১০১:৪ ফিরাশ শব্দ উল্লেখ করা হয়েছে-

যেদিন মানুষ হবে বিক্ষিপ্ত পতংগের (فَرَاشِ) মত

আয়াত ০২:২২ এ পৃথিবীকে উড়ন্ত কীটপতঙ্গ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে যা প্রমাণ করে যে পৃথিবী গতিশীল।



অতএব  উপরোক্ত আয়াতগুলো শব্দগত বিশ্লেষন করলে পৃথিবীর গতি সম্পর্কে জানা যায়।



Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Generate EPub eBooks with ease