শাস্তির ভয়ে সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বে বিশ্বাস করে!

Parent Previous Next

মানুষ শাস্তির ভয়ে এই মহাবিশ্বের সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বে বিশ্বাস করে!


জবাব:

প্রথমত, ভাবখানা যেন এমন, “আমরা বেশ সাহসী! এই মহাবিশ্বের সৃষ্টিকর্তার সাথে যুদ্ধ করার মতো আমাদের যথেষ্ট শক্তি-সামর্থ আছে!”

দ্বিতীয়ত, এটি অন্যের উপর চাপিয়ে দেয়া একটি বুলি। একজন মানুষ শাস্তির ভয়ে নাকি অন্য কোন কারণে সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বে বিশ্বাস করে- সেটা একমাত্র তিনিই বলতে পারবেন। তৃতীয়ত, কোনরকম কুতর্কে না যেয়ে ধরেই নেয়া যাক যে, মানুষ সত্যি সত্যি শাস্তির ভয়েই সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বে বিশ্বাস করে। কিন্তু তার মানে কি সৃষ্টিকর্তার অনস্তিত্ব প্রমাণ হয়? শাস্তির ভয়ে কোন কিছুতে বিশ্বাস করলেই তার অস্তিত্ব ‘নাই’ হয়ে যায় নাকি! এ আবার কেমন যুক্তি! উদাহরণস্বরূপ, শিশু বাচ্চারা বাঘকে না দেখেই তার জন্য ভয় করে বলে কি প্রমাণ হয় যে বাঘ বলে কিছু নাই! অধিকন্তু, নিছক ভয়ের কারণে সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বে বিশ্বাস করলে তো তাঁকে ওয়ার্শিপ করার কথা না। বাঘ-সিংহের ভয়ে কেউ কি তাদের সামনে কড়জোর করে প্রার্থনা শুরু করে দেয়, নাকি পালিয়ে যায়? অতএব এই ধরণের যুক্তির সামান্যতমও কোন মূল্য নেই। এই মহাবিশ্বের সৃষ্টিকর্তার অনস্তিত্ব প্রমাণের জন্য এটি কোন যুক্তিই নয়, প্রমাণ তো দূরে থাক।

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free EPub and documentation generator