আল্লাহর প্রতি প্রচুর প্রশংসা

Parent Previous Next

কুরানে রয়েছে আল্লাহর প্রতি প্রচুর প্রশংসা / গুন বাচক শব্দ (Quran 2:37,54,105,115,127-129,137,143,148, 173,182,199,209,126-128 …. ইত্যাদি) ! কোন সৃষ্টি কর্তার দ্বারা কি এমন (মানুষের মত) হাস্যকর কাজ করা সম্ভব (নিজের ঢোল নিজে পেটানো) ?


জবাব :

আপনার যুক্তিতে একই ধরণের ভুল বার বার আসছেঃ

কোন সৃষ্ট কিছু যদি X করতে না পারে, তাহলে সৃষ্টিকর্তা সেই X করতে পারবে না কেন?


বরং প্রশংসা করার অধিকার যদি কারো থাকে তাহলে সেটা শুধু মাত্র সৃষ্টি কর্তারই কি আছে না? সৃষ্ট জীবের নিজের প্রশংসা করাটা তো হাস্যকর কারণ সে সৃষ্টিকর্তার তৈরি কিছু নিয়ে নিজেই ঢোল পেটাচ্ছে।


কু’রআনে আল্লাহ তার গুণগুলো কিছু বিশেষ বিশেষ প্রেক্ষিতে প্রকাশ করেন, কিছু বিশেষ তথ্য দেবার জন্য।


যেমন আপনার কোট করা একটি আয়াত বলিঃ

২:৩৭

Then Adam received some words from his Lord and He accepted his repentance: He is the Ever Relenting, the Most Merciful.


এখানে আল্লাহ তাঁর ক্ষমার গুনটি আমাদেরকে বিশেষ ভাবে বলেছেন এটাই বলার জন্য যেঃ

১) আল্লাহর ক্ষমা কতখানি সেটা আদমের দোষের কথা চিন্তা করলেই মানুষ বুঝতে পারবে। তার মত এতো বড় পাপ করেও ক্ষমা চেয়ে যদি কেউ আল্লাহর কাছে ক্ষমা পায়, তাহলে আমরা আর কি।

২) আমরাও যেন আশা হারিয়ে না ফেলি যে আমরা গুনাহ করলে আল্লাহর ক্ষমা পাব না।

৩) আল্লাহ এখানে তাঁর দুটো গুনের কথা বলেছেন – ever relenting, the most merciful. যদি শুধুই ever relenting বলতেন, তাহলে এই হত যে আল্লাহ শুধুই আদমের গুনাহ মাফ করে দিয়েছেন এবং তারপরে তিনি আদমের জন্য আর কিছু করেন নি। বরং most merciful দিয়ে তিনি আমাদেরকে এটাও বলেছেন যে তিনি শুধু আদমকে ক্ষমাই করেন নি, তিনি আদমের ভালর জন্য আরও অনেক কিছু করেছেন, যা পরবর্তী আয়াতগুলোতে এসেছে।

৩) আল্লাহ শুধুই ক্ষমা করেন না, বরং তিনি ক্ষমার পড়ে আমাদের ভালও করেন। আমারা যেমন ক্ষমা করে বলি, “ক্ষমা করেছি ব্যাস, আমার কাছ থেকে আর কিছু আশা করোনা।” আল্লাহ সেরকম নন।


এই প্রত্যেকটা ‘ঢোল পেটানোর’ মধ্যে অনেক কিছু চিন্তা করার, উপলব্ধি করার আছে যা যারা চিন্তা এবং উপলব্ধি করতে পারে, তারা ঠিকই বুঝতে পারবে।

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free Kindle producer