প্রথম পুরুষ বাচক শব্দ

Parent Previous Next

কুরান আল্লাহর পাঠানো বানী হলে তাতে সর্বদা থাকবে প্রথম পুরুষ বাচক শব্দ (যেমন Quran 2:38) কিন্তু কুরান জুড়েই রয়েছে তিনি/যিনি/তাঁর/আমরা/আল্লাহ (নিজের নাম) ইত্যাদি সহস্র ব্যাকরণগত ভুল (Quran 1:1-7, 2:7-10,26-29,31,33, …. 3:2-9,18-21,32-34,40-41,50-55,62-63,70,73-74, …. 4:1,5,11-15,17,19,26-29,32,34,36, …. 5:7-8,11-12,47,51,54-56, …. ইত্যাদি) ! এ থেকে কি এটাই প্রতিয়মান হয় না যে কুরান নিরক্ষর মুহম্মদের নিজের মুখের কথা ?



জবাব :

আপনি ভুল যুক্তি ব্যবহার করছেনঃ

কোন সৃষ্ট কিছু যদি X করতে না পারে, তাহলে সৃষ্টিকর্তা সেই X করতে পারবে না কেন?


কু’রআন সেক্সপিয়ারের লেখা কোন গল্পের বই না। এটা মাহাত্তা গান্ধির লেখা কোন সংবিধানও না। এটা কোন মানব রচিত সাহিত্য না যে তাকে মানুষের তৈরি সাহিত্যিক নিয়মগুলো মেনে চলতে হবে। বরং এই পার্থক্য গুলো এটাই প্রমাণ করে যে কু’রআনের স্রস্টার কোন প্রয়োজন নেই অর্থবোধক কোন সাহিত্য মানুষকে পাঠানোর জন্য মানুষের তৈরি কিছু সাহিত্যিক practice অনুসরণ করার।

তাছাড়া আপনি বলেছেন ‘ব্যকরনগত ভুল’। আপনার বোধহয় ব্যকরন সম্পর্কে প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান নেই। কারণ এখানে কোন ব্যকরন গত ভুল নেই। যেমনঃ


রাইট হার্ট বলেন, আমি একটা পাগল।

আর

রাইট হার্ট, তিনি একটা পাগল।


এ দুটোই ব্যকরন গত ভাবে সঠিক। এখানে কোন ব্যকরন ভুল নেই।


আপনি নিজেই যদি এধরনের বাক্য লিখতেন, তাহলে তা একটু অদ্ভুত শোনাত। কিন্তু তাই বলে এই না যে বাক্য গুলো ব্যকরন গত ভাবে ভুল। অদ্ভুত সাবজেক্টিভ, ভুল অবজেকটিভ।

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Easily create Web Help sites