The 100: A Ranking of the Most Influential Persons in History

Parent Previous Next

কাঠ-মুল্লারা মাইকেল এইচ হার্টস এর “The 100: A Ranking of the Most Influential Persons in History” গ্রন্থে মুহাম্মদের নাম এক নাম্বারে দেখেই অজ্ঞতাবশত তাঁকে ‘দ্যা বেস্ট হিউম্যান’ ধরে নিয়েছে! কিন্তু তারা জানেই না যে, মাইকেল হার্টস ‘দ্যা বেস্ট যোদ্ধা’র তালিকা করেছেন, ‘দ্যা বেস্ট হিউম্যান’ এর তালিকা নয়, যেহেতু সেই লিস্টে হিটলারের নাম আছে!

জবাব :

প্রথমত, মুহাম্মদ (সাঃ)-কে যেহেতু এই মহাবিশ্বের সৃষ্টিকর্তার মেসেঞ্জার হিসেবে বিশ্বাস করা হয় এবং তিনি যেহেতু কোরআনের মত ইউনিক একটি গ্রন্থ রেখে গেছেন এবং মাত্র চৌদ্দশ’ বছরে যেহেতু তাঁর দেড় বিলিয়নেরও বেশী ফলোয়ার আছে সেহেতু তাঁকে ‘দ্যা বেস্ট হিউম্যান’ ধরে নেয়ার পেছনে কাঠ-মুল্লাদের যথেষ্ট যুক্তি আছে। এক্ষেত্রে অস্বাভাবিকতার কিছু নাই। কিন্তু ছাগইল্যা-মুল্লারা যেটা জানে না সেটা হচ্ছে, সেই একই লিস্টে স্যার আইজ্যাক নিউটন, যীশুখ্রিস্ট, গৌতম বুদ্ধ, আইনস্টাইন, গ্যালিলিও, ও চার্লস ডারউইনের নাম যথাক্রমে দুই, তিন, চার, দশ, বারো, ও ষোল নাম্বারে আছে! এঁরা ছাড়াও বেশ কয়েকজন বিজ্ঞানীর নাম সেই লিস্টে আছে। ফলে মাইকেল হার্টস ‘দ্যা বেস্ট যোদ্ধা’র তালিকা করলে তো সেই তালিকায় এঁদের কারো নাম থাকার কথা নয়, যেহেতু এঁদের কেউ কখনো যুদ্ধ করেছেন বলে মনে হয় না! ফ্যানাটিক মিশনারিজ মুল্লারা সম্ভবত ‘Influential’ মানে ‘যোদ্ধা’ ধরে নিয়েছে! যে যেভাবে ভাবে আর কি!

যাহোক, মাইকেল হার্টস এর বিশ্লেষণ অনুযায়ী প্রফেট মুহাম্মদের নাম এক নাম্বারে এসেছে। কিন্তু অন্য কারো বিশ্লেষণ অনুযায়ী তাঁর নাম যদি পাঁচ বা সাত নাম্বারে আসে তাহলে কি মুসলিমরা তাঁকে গডের মেসেঞ্জার হিসেবে বিশ্বাস করা ছেড়ে দেবে? মোটেও তা নয়!

Created with the Personal Edition of HelpNDoc: Free Web Help generator